বিভিন্ন জায়গার বিভিন্ন বয়সের মানুষ, কিন্তু মন সবার ভ্রমনপিপাসু

প্রথম ঘুরতে যাওয়া বলতে ২০১০ সালে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে আমরা তিন বন্ধু মিলে কুমিল্লায় যাওয়া।আমার কাছে কুমিল্লা ট্যুরটাই বেস্ট কারন তখন মোবাইল,ফেসবুকের এত প্রচলন ছিল না।নিজেদের মতো করে সময়টা কাটানো গেছে।
তারপর পাঁচ বছরের লম্বা বিরতী।কোন একভাবে টিজিবিতে এড হয়েছিলাম,তো দেখলাম তাঁরা প্রায়ই সময় কোথাও না কোথাও ঘুরতে যায়।আমার বাজেটের মধ্যে হওয়ায় অবশেষে ২০১৫ তে টিজিবির সাথে সাজেক ট্যুরে যাওয়ার আগ্রহ হয়েছিল, এটা টিজিবিরও প্রথম সাজেক ট্যুর ছিল।
কিন্তু ট্যুরের সবাই সিনিয়র হওয়ায় আর আমার কোন বন্ধু-বান্ধব না থাকাই ভাবতাম এই ট্যুরে যাওয়া ঠিক হবে কিনা,একা একা থাকতে হবে কিনা ট্যুরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত এটা নিয়েই ভাবতাম।যতটা না সাজেক ট্যুরের জন্য রোমাঞ্চ থাকার কথা কিন্তু তার চেয়ে কনফিউশনই বেশি কাজ করছিল।
কিন্তু সাজেকে যাত্রা শুরু করার পরই আমার সব ভুল ভাঙ্গতে শুরু করল। অথচ ট্যুরের কেউই এক জায়গার বা সমবয়সি ছিল না,আবার সবার পেশাও ছিল ভিন্ন।
ভিন্ন জায়গার,ভিন্ন বয়সের মানুষের সাথে ট্যুরও যে এত স্মৃতিময় হয় তা আমার জানা ছিল না।গান করা,রাতে ক্যাম্প ফায়ার করা,প্রথম বাশ খাওয়া তাও আবার ভাতের সাথে,সিকাম তইশা ঝর্নায় যাওয়া যেখানে সাজেকে যাওয়া পর্যটকদের মধ্যে মাত্র ১০% হবে গিয়েছে।কি না ছিল সাজেক ট্যুরে।এতটুকু বুঝার উপায় নেয় যে কে সিনিয়র,কে জুনিয়র,কে কোথায় থেকে এসেছে, সবাই সবাইকে সময় দিয়েছে।


ভিন্ন ভিন্ন জায়গার মানুষের সাথে ট্যুরে সেই জায়গা ও সেই জায়গার মানুষ সম্পর্কে ধারনা পাওয়া যায়।বলা যায় এটা একটা শিক্ষা সফরের মতোই।তাছাড়া নিজের অবস্থান সম্পর্কে জানার জন্য হলেও ভিন্ন ভিন্ন জায়গার,বয়সের মানুষের সাথে ট্যুরে যাওয়া সবারই উচিৎ মনে করি।
সেই থেকে টিজিবির সাথে ভ্রমনের মজা পেলাম, এখনো সুযোগ পেলে টিজিবির সাথেই যাই,সামনেও যাব।
বাধা দেওয়ার তুই ক্যাডা?

#TGBbookfair

লিখেছেনঃ সাজিদুল ইসলাম সাইমন

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *