ভুটান ভ্রমণ (১৩ আগস্ট) - 6 Days

ভুটানকে অক্সিজেনের দেশ বলা হয় তার বিশুদ্ধতার জন্য। খুব পরিচ্ছন্ন একটি দেশের নাম ভুটান, যে দেশ এর নাম শুনলেই চোখে ভাসে সবুজে ঘেরা একটি দেশ, হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়ার মত মনোরম দৃশ্যে ভরা চারপাশ।

যাত্রার তারিখঃ ১৩ আগস্ট ৭:৩০ টা ।
ফেরার তারিখ ২০ আগস্ট  ৬ঃ৩০ টা (আনুমানিক)

** (ট্রিপটি হবে বাই রোডে, এখানে এয়ার যোগ করার অপশন নেই, কেউ এয়ারে যেতে চাইলে আমাদের সাথে ভুটান থেকে যোগ হতে হবে)
== ভ্রমণ খরচঃ ২৩৫০০/- টাকা। 

—(** ভিসা প্রসেসিং এর ক্ষেত্রে সকল প্রকার সহযোগিতা করা হবে । আপনাকে ট্রাভেল ট্যাক্স সোনালি ব্যাংক এর যে কোন শাখা থেকে আপনারা পাসপোর্ট এর কপি সাথে নিয়ে গিয়ে দিয়ে দিতে পারবেন। ৫০০ টাকা ট্রাভেল ট্যাক্স নিজেদেরকে দিতে হবে। অথবা আমাদেরকে বললে আমরা দিয়ে দিতে সাহায্য করবো।)

* সাথে থাকবে ট্যুর গ্রুপ বিডির একটি ঝকঝকা নতুন টি-শার্ট।

* যাওয়া এবং আসার বাসের সিট কনফার্মেশনের সিরিয়ালের উপর ভিত্তি করে দেয়া হবে।

** ভ্রমণের সম্ভাব্য বর্ণনাঃ

– ১৩ আগস্ট রাতের এসি বাসে করে ঢাকা থেকে বুরিমারি বর্ডার যাবো।

– ১৪ আগস্ট বর্ডার পার হয়ে কোষ্টার নিয়ে জয়গা । প্রথম রাত ভুটান বর্ডার অর্থাৎ জয়গাতেই থাকব এবং ভুটানের ফুন্টসেলিং শহর ঘুরে দেখব ।

– ১৫  আগস্ট সকালে জয়গাও থেকে রওয়ানা হয়ে দুপুরে থিম্পুতে পৌছাব । সন্ধ্যায় ঘুরতে যাবো বুদ্ধা পয়েন্ট এর পর থিম্পু শহর ।রাতে থিম্পু শহরের অদূরে কোন নিরিবিলি হোটেলে থাকা ।

– ১৬ আগস্ট সকালে থিম্পু সাইট সিন এবং দোচালা পাস হয়ে চলে যাবো সরাসরি পুনাখা। পুনাখাতেই রাতে থাকা।

– ১৭ আগস্ট  সকালে পুনাখায় ,পুনাখা জং , সাস্পেনশন ব্রিজ এবং রাফটিং করব (যারা করতে চান, অবশ্যই নিজ খরচে করতে হবে। ১০০০-১৫০০ রুপি খরচ পড়ে প্রতি জন) ।
পুনাখায় দুপুরের খাবার খেয়ে আমারা যাবো পারোতে ।

– ১৮ আগস্ট ভোরে টাইগার নেষ্টের উদ্দেশ্যে বের হয়ে যাবো। টাইগার নেষ্টের অর্ধেকটা পথ ঘোড়ায় চড়ে উঠা যায়, এটি ট্রিপের আনন্দ অনেকগুণ বাড়িয়ে দেয়।তাই আমরা সকলেই ঘোড়ায় চড়ে উঠবো। (তবে ঘোড়ার খরচ ব্যক্তিগতভাবে বহণ করতে হবে, ৩০০-৪০০ রুপি হবে খরচ)।
ফিরে এসে লাঞ্চ করে পারোতে রাত্রি যাপন।

– ১৯ আগস্ট খুব ভোরে জয়গা বর্ডারের উদ্দেশ্যে বের হবো। ইমিগ্রেশন এর কাজ শেষ করে লাঞ্চ সেরে চলে আসবো চ্যাংরাবান্ধা-বুড়িমারি বর্ডার। বর্ডারের কাজ শেষ করে দেশে প্রবেশ, এবং সেখান থেকে বাস ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে দেয়া। রাতে হাই-ওয়ে হোটেলে খাওয়া দাওয়া।

– ২০ আগস্ট সকালে ঢাকায় পৌঁছে যাবো ইনশাল্লাহ।

(নোটঃ– ট্রিপের স্বার্থে যে কোন প্ল্যান পরিবর্তন করা হতে পারে। আর এক্সিডেন্টাল যে কোন সমস্যায় ধৈর্য ধারণ করে আমাদেরকে সহায়তা করতে হবে। বর্ডারের প্রসেসিং একটু ধীর হয়, তাই সেখানেও সবাই সবাইকে সহায়তা করলে সুন্দর একটি ট্রিপ করে আসতে পারবো আমরা।)

ভুটান বাই রোডে যেতে হলে সবাইকে ভারতের ট্রানজিট ভিসা করাতে হবে। এক্ষেত্রে ভারতীয় ভিসা থেকে থাকলে তা ক্যানসেল হয়ে যাবে।

যে যে কাগজগুলো লাগবেঃ
আমরা ইন্ডিয়ান এম্বাসীতে দাঁড়াবো ২০ জুলাই সকালে।

১. MRP পাসপোর্ট।
২. পুরাতন থাকলে অবশ্যই সংযোজন করে নিয়ে জাবেন অন্যথায় জমাই নিবে না।
৩. ২ কপি “2by2” ছবি। (সাথে একটি সফট কপিও/স্ক্যানড কপিও লাগবে)। আর ছবি অবশ্যই সদ্য তোলা হতে হবে। সেই সাথে আগে ইন্ডিয়ান ভিসার জন্য এপ্লাই করা ছবি বাতিল বলে গণ্য হয়।
৪. পাসপোর্টের ৩ কপি ফটোকপি (শুধু MRP)।
৫. ন্যশনাল আইডি অথবা জন্ম সনদের ফটোকপি।
৬. ব্যাংক স্টেটমেন্ট(কমপক্ষে ২০০০০ টাকা থাকতে হবে একাউন্টে) অথবা এন্ডোরসমেন্টের অরিজিনাল কপি এবং ফটোকপি।
৭. স্টুডেন্ট হলে আইডি কার্ডের ফটোকপি। চাকুরীজীবী হলে NOC (No Objection Certificate) এবং ভিসিটিং কার্ড, ব্যবসায়ী হলে ট্রেড লাইসেন্সের ফটোকপি এবং ভিসিটিং কার্ড
৮. ইউটিলিটি বিলের (বিদ্যুৎ বিল অথবা টেলিফোন বিল) মূলকপি এবং ফটোকপি। (অবশ্যই ৩ মাসের পুরাতন নয়)।

নোটঃ প্রত্যেকটি ডকুমেন্ট যেগুলো আমাদেরকে জমা দিবেন, সবগুলোর কপি সাথে রাখবেন এবং যাবার দিন সাথে নিয়ে যাবেন।
NOC পেপার বাংলাদেশের বর্ডারে দেখতে চায়,তাই সেটি অবশ্যই কয়েকটি কপি করে নিবেন।

== ট্রিপের খাবার, হোটেল, কোষ্টার, বাস সবই স্ট্যান্ডার্ড মাণের হবে।

* যারা আমাদের সাথে আগে ট্রিপ করেছেন,তারা জানেনই যে আমাদের ট্রিপে কোন প্রকার হিডেন খরচ থাকেনা। কেউ চাইলে এই খরচের বাইরে কোন অতিরিক্ত অর্থ খরচ না করেও পুরো ট্রিপটি করে আসতে পারবেন।

লক্ষণীয়ঃ
খাবারঃ ভুটানের খাবারের স্বাদ তেমন ভালো না এবং আলুর প্রধান্য বেশি এই ব্যাপারে মানসিকভাবে একটু প্রস্তুতি রাখতে হবে। এজন্য আমাদের তরফ থেকে অবশ্য প্রতি বেলায় খাবারে ভেরিয়েশন এমন কি বুফেট মেনু রাখার চেষ্টা করি ।

রিসোর্টঃ আশা করছি সবাইকে খুশি করার মত ভাল মাণের রিসোর্ট নেয়া হবে, আমরা সব কনফার্ম করার পর রিসোর্ট/হোটেলের নামও মেনশন করে দিবো, আপনারা চেক করে নিতে পারবেন।

** ভিসা প্রসেসিংঃ ভিসা প্রসেস আমরাই করে দিবো, সে ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র/কাগজপত্র কোথায় কখন লাগবে, আমরা পরবর্তীতে জানিয়ে দিবো। আপনারা সেইভাবে আমাদেরকে সহায়তা করলে ইনশাল্লাহ ঠিক ঠাকভাবেই করে ফেলতে পারবো আমরা। তবে ভিসার খরচ ব্যক্তিগতভাবে বহন করতে হবে।
আপনাদেরকে কেবল একদিন যেয়ে এম্বাসিতে জমা দিয়ে আসতে হবে।
– যারা যাবার ইচ্ছে প্রকাশ করছেন, কিন্তু এখনও পাসপোর্ট নেই, তারা পাসপোর্ট করে নিতে পারবেন।
পাসপোর্ট করার নিয়ম এই ডক ফাইলে লেখা আছে, লাগলে দেখে আইডিয়া নিয়ে নিন কিছুটাঃ

https://www.facebook.com/notes/661166

** কনফার্ম করার জন্য ১০ জুলাই তারিখের মধ্যে ১২০০০ টাকা পাঠাতে হবে।

(ব্যাংকে দিলে বা অফিসে এসে দিলে ১২০০০ টাকা)
আর বাকি টাকা ট্রিপে যাওয়া আগে অফিসে এসে জমা দিয়ে কনফার্মেশন টোকেন নিয়ে যেতে হবে।

** যা সাথে নেওয়া উচিতঃ
– ভ্রমণের সময় যত কম জিনিস নেয়া যায়, যত কম কাপড় নেয়া যায় ততই আরামদায়ক হয় ভ্রমণ
– পাহাড়ে উঠলে ঠান্ডা থাকে প্রচুর,তাই শীতের প্রস্তুতি নিয়ে যেতে হবে।
– ভুটানে যে কোন সময় বৃষ্টি চলে আসে,তাই বৃষ্টি থেকে নিজের ব্যাগ এবং নিজেকে বাচাতে সকল প্রস্তুতি নিজেদেরই নিতে হবে।
– গামছা নিবেন যেন রোদে মাথায় ঢেকে হাঁটা যায়
– সানগ্লাস, হ্যাট, সান ক্রিম (যদি অতিরিক্ত ত্বক সচেতন হন)
– ব্রাশ ,প্রয়োজনীয় ঔষধ
– ক্যমেরা এবং এর এক্সট্রা ব্যাটারি
– চার্জের জন্য পাওয়ার ব্যাংক
*******

কনফার্ম করার আগে যে ব্যাপার গুলো অবশ্যই বিবেচনা করতে হবেঃ

বাইরে যাবার ব্যাপারগুলোতে পোর্টে অনেক ক্ষেত্রে সময় বেশি লেগে যেতেই পারে, তাই টাইমিং ঠিক রাখা অনেক ক্ষেত্রে সম্ভব হয় না। আমরা কেবল সব কিছুর সম্ভাব্য একটি প্ল্যান করে সামনে আগাতে থাকবো, আর ফিরে আসার টাইমটা ঠিক রাখার চেষ্টা করবো। বাকি টাইমিং গুলো কিছুটা আগে পিছে, বা কাট-ছাট হতে পারে। তবে আপনারা সবাই কো-অপারেট করলে সব ঠিক ঠাক ভাবে করা সম্ভব।

** টাকা পাঠানোর উপায়ঃ
ব্যাংক এ লেনদেন সবচেয়ে সেইফ এবং আমরাও উৎসাহিত করি ব্যাংক এ লেনদেন করতে, তারচেয়েও সেইফ হচ্ছে অফিসে এসে টাকা জমা দিয়ে ট্রিপ কনফার্মেশন টোকেন নিয়ে যাওয়া।

অফিসের ঠিকানাঃ আমাদের অফিসের ঠিকানাঃ বিল্ডিং নাম্বার ২০, রোড নাম্বার ২,জি ব্লক, এভিনিউ ২, লাভ রোড, স্পাইসি হাউজ রেস্টুরেন্ট এর তিন তলা, মিরপুর ২ (স্ট্যাডিয়াম এর তিন নাম্বার গেট এর উলটা দিকে, ন্যাশনাল প্রাথমিক বিদ্যালয়য়ের পাশে)

Tour Group BD
#16411026552
Dutch Bangla Bank Ltd.
(Mirpur Branch)

– 01840238946 (মার্চেন্ট একাউন্ট, এই নাম্বারে খরচ সহ পেমেন্ট অপশন থেকে টাকা পাঠিয়ে ট্রিপের কনফার্মেশন বুঝে নিবেন)
– 016731112379 DBBL রকেট একাউন্ট
(খরচ সহ পাঠাতে হবে)

ট্রিপের হোস্টের কাছেও টাকা জমা দিতে পারেন।

** শর্ত সমুহঃ
১- প্রথমেই একটি ভ্রমণ পিপাসু মন থাকতে হবে।
২- ভ্রমণকালীন যে কোন সমস্যা নিজেরা আলোচনা করে সমাধান করতে হবে।
৩- ভ্রমণ সুন্দর মত পরিচালনা করার জন্য সবাই আমাদেরকে সর্বাত্মক সহায়তা করতে হবে।
৪- আমরা শালিনতার মধ্যে থেকে সরবোচ্য আনন্দ উপভোগ করব।
৫- প্রতিটি যায়গা ই আমাদের নিজেদের, তাই তার সৌন্দর্য রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। যেন ট্যুরিজম এর কোন ক্ষতি না হয়, সেটা সর্বোচ্চ্য প্রাধান্য দিতে হবে।
৬- অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে যে কোন সময় সিদ্ধান্ত বদলাতে পারে, যেটা আমরা সকলে মিলেই ঠিক করব।
৭- স্থানীয়দের সাথে কোন রকম বিরূপ আচরণ করা যাবে না। নতুন কারো সাথে কথা বলার ক্ষেত্রে প্রয়োজনে ট্রিপ হোস্টের সহায়তা নিতে হবে।
৮- কোনভাবেই কোন প্রকার মাদক সেবন বা সাথে বহন করা যাবে না। সাথে পাওয়া গেলে তাকে বা তাদেরকে তৎক্ষণাৎ ট্রিপ থেকে বহিষ্কার করা হতে পারে গ্রুপের অন্য সবার সাথে স্বীদ্ধান্ত নিয়ে।
৯- দুর্ঘটনা বলে কয়ে আসে না তাই যে কোন প্রকার দুর্ঘটনা সকলে মিলে মোকাবেলা করতে হবে এবং এর যৌক্তিক খরচ সকলে মিলে বহণ করতে হবে ।
** ১০- এই গ্রুপ সম্পূর্ণ ভ্রমণপিপাসুদের গ্রুপ। এখানে কোন প্রকার অশ্লীলতার কোন রকম সুযোগ নেই। কোন রকম অসৎ উদ্দেশ্যে যদি কেও আমাদের সাথে ভ্রমণে যান, সেটি বুঝে যেতে আমাদের খুব বেশি সময় লাগে না। এবং সেই মোতাবেক আমরা ব্যবস্থা নিবো।

** ভ্রমণের জন্য যে কেও আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।
ছেলে/ মেয়ে সকলেই যেতে পারবে।

আমাদের গ্রুপ এর ঠিকানাঃ https://www.facebook.com/groups/TourgroupBd/
আমাদের পেজের ঠিকানাঃ https://www.facebook.com/TourgroupBd/

**যোগাযোগ- ০১৮৪০২৩৮৯৪৬ ম্যানেজার।

এটি আমাদের অফিসিয়াল নাম্বার, এই নাম্বারে যোগাযোগ করে জেনে নিবেন ট্রিপের বিস্তারিত, এবং কনফার্ম করতেও এই নাম্বারটিতে যোগাযোগ করুন। তবে ট্রিপ এর সকল তথ্য পড়েও কোন জিজ্ঞাসা বা কনফিউশন থাকলে নিম্নোক্ত নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারবেনঃ রাহি- ০১৭২৩৫৮৬৮৭৭ ,রিমন:০১৮১৯৮৭৮৩৪০।

Day 1
১৩ আগস্ট

রাতের এসি বাসে করে ঢাকা থেকে বুরিমারি বর্ডার যাবো

Day 2
১৪ আগস্ট

বর্ডার পার হয়ে কোষ্টার নিয়ে জয়গা । প্রথম রাত ভুটান বর্ডার অর্থাৎ জয়গাতেই থাকব এবং ভুটানের ফুন্টসেলিং শহর ঘুরে দেখব

Day 3
১৫ আগস্ট

সকালে জয়গাও থেকে রওয়ানা হয়ে দুপুরে থিম্পুতে পৌছাব । সন্ধ্যায় ঘুরতে যাবো বুদ্ধা পয়েন্ট এর পর থিম্পু শহর ।রাতে থিম্পু শহরের অদূরে কোন নিরিবিলি হোটেলে থাকা

Day 4
১৬ আগস্ট

সকালে থিম্পু সাইট সিন এবং দোচালা পাস হয়ে চলে যাবো সরাসরি পুনাখা। পুনাখাতেই রাতে থাকা

Day 5
১৭ আগস্ট

সকালে পুনাখায় ,পুনাখা জং , সাস্পেনশন ব্রিজ এবং রাফটিং করব (যারা করতে চান, অবশ্যই নিজ খরচে করতে হবে। ১০০০-১৫০০ রুপি খরচ পড়ে প্রতি জন) । পুনাখায় দুপুরের খাবার খেয়ে আমারা যাবো পারোতে

Day 6
১৮ আগস্ট

ভোরে টাইগার নেষ্টের উদ্দেশ্যে বের হয়ে যাবো। টাইগার নেষ্টের অর্ধেকটা পথ ঘোড়ায় চড়ে উঠা যায়, এটি ট্রিপের আনন্দ অনেকগুণ বাড়িয়ে দেয়।তাই আমরা সকলেই ঘোড়ায় চড়ে উঠবো। (তবে ঘোড়ার খরচ ব্যক্তিগতভাবে বহণ করতে হবে, ৩০০-৪০০ রুপি হবে খরচ)।

ফিরে এসে লাঞ্চ করে পারোতে রাত্রি যাপন

Day 7
১৯ আগস্ট

খুব ভোরে জয়গা বর্ডারের উদ্দেশ্যে বের হবো। ইমিগ্রেশন এর কাজ শেষ করে লাঞ্চ সেরে চলে আসবো চ্যাংরাবান্ধা-বুড়িমারি বর্ডার। বর্ডারের কাজ শেষ করে দেশে প্রবেশ, এবং সেখান থেকে বাস ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে দেয়া। রাতে হাই-ওয়ে হোটেলে খাওয়া দাওয়া

Day 8
২০ আগস্ট

সকালে ঢাকায় পৌঁছে যাবো ইনশাল্লাহ।

** যা যা থাকছে এর মধ্যে:

  • সকল ট্রান্সপোর্ট। ঢাকা থেকে শুরু করে--
  • জীপের/কোষ্টার এর সকল খরচ
  • ২৩ তারিখ সকালের খাবার থেকে শুরু করে আসার দিন রাতের খাবার সহ প্রতিদিন ৩ বেলা খাবার
  • রিসোর্টে/হোটেলে থাকার খরচ
  • সকল এন্ট্রি ফি
  • ট্যুর গ্রুপ বিডির টি-শার্ট।

** যা থাকছে না

  • কোন ব্যক্তিগত খরচ
  • ট্রাভেল ট্যাক্স (ভ্রমণ কর)
  • ভিসার খরচ
  • টাইগার নেষ্টে ঘোড়ায় চড়ে উঠার খরচ
  • রাফটিং এর খরচ
  • কোন ঔষধ
  • কোন প্রকার দুর্ঘটনাজনিত বীমা
  • বর্ডারে কোন স্পীডি মানি লাগ্লে

You can send your enquiry via the form below.

ভুটান ভ্রমণ (১৩ আগস্ট)
Price From
৳ 23,500 Per Person
Add Travelers
Person
৳ 23,500 Per Person
Need Help With Booking? Send Us A Message

Trip Facts

  • Hotel
  • Easy