সান্দাকফু-ফালুট ট্রেকিং এ টিজিবি বাহিনী (৯ এপ্রিল) - 7 Days

সান্দাকফু-ফালুট বিজয়ে টিজিবি বাহিনী (৯ এপ্রিল)

সান্দাকফু পশ্চিমবঙ্গের উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ। এই পর্বতের চূড়ার উচ্চতা ৩,৬৩৬ মিটার। সিঙ্গালিলা জাতীয় উদ্যানের ধারে পশ্চিমবঙ্গ-নেপাল সীমান্তে অবস্থিত এই শৃঙ্গ পূর্ব হিমালয়ের সিঙ্গালিলা গিরিশিরার সবচেয়ে উঁচু বিন্দু। সান্দাকফু অর্থ ‘Height of the Poison Plants’। সান্দাকফুর চূড়ার কাছে (বিখেভাঞ্জান থেকে) এক ধরনের বিষাক্ত গাছ একোনাইট জন্মায়। সেখান থেকেই এই নাম এসেছে ।

হিমালয়ের সুবিশাল ক্ষেত্রে ট্রেকিংয়ে হাতেখড়ির জন্য এই ট্রেককে বলা যায় আদর্শ। সান্দাকফু চূড়ার ৩৬০ ডিগ্রি ভিউ থেকে এভারেস্ট, কাঞ্চনজঙ্ঘা, লোৎসে ও মাকালু – পৃথিবীর পাঁচটি সবচেয়ে উঁচু শৃঙ্গের চারটিই সান্দাকফু থেকে দেখা যায়।
আদতে সান্দাকফুর পরিচিতি ট্রেকিংয়ের স্বর্গরাজ্য হিসাবে। যাঁরা সবে ট্রেকিং শুরু করেছেন তাঁদের কাছে পায়ে হাঁটার আদর্শ গন্তব্য সান্দাকফু-ফালুট।

রঙ্বেগরঙের রডোডেনড্রন, উঁচু উঁচু পাইন বন, রেড পান্ডাদের আবাসস্থল সিঙ্গালিলা জাতীয় উদ্যানের মাঝ দিয়ে চলে যাওয়া এই ট্রেইল মাঝারি সহজ বলে যারা অতি উচ্চতায় ট্রেকিং শুরু করতে চান তাদের জন্য একদম আদর্শ। শুধু চোখ জুড়ানো সৌন্দের্যের জন্যই নয়, হিমালয়ের অতি উচ্চতা ও ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় নিজেকে যাচাই করার জন্যেও এই ট্রেকটি উত্তম।

#_সান্দাকফু_ফালুট_ট্রেকিং

** যাত্রার তারিখ ৯ এপ্রিল রাত ৮.৩০ এ
ফেরার তারিখ ১৭ এপ্রিল সকাল ৭ টা (ঢাকায় থাকবো) ।

** ভ্রমণের মূল খরচ ধরা হয়েছে ১৫,৯০০/- টাকা
(ভিসা ফি এবং ট্রাভেল ট্যাক্স নিজ নিজ)

#বুকিং এর জন্যঃ +8801840238946,
অথবা +8801877722854,+8801911580907

এবং পরামর্শ বা কোন কিছু জানার জন্য অথবা কর্পোরেট ট্যুরের জন্য কল করুন

#টিজিবি হেল্প লাইনঃ +8801877722851 থেকে +8801877722855।

( ট্রেকিং ট্যুর তাই অনেক সুযোগ সুবিধা যেমন ইচ্ছেমত রুম বাছাই ,এটা খাবোনা সেটা খাবোনা এসবের কোন অবকাশ নাই । এখানে পরিষ্কার ভাবে বলে দিচ্ছি এই খরচে পুরো ট্রিপের প্রায় সব খরচই থাকবে, এর বাইরে আর কোন খরচ লাগবে না আপনাদের, শুধু ব্যক্তিগত খরচ বাদে। ট্রাভেল ট্যাক্স ব্যক্তিগত খরচের মধ্যে পড়ে)

ভেঙ্গে বলতে গেলে প্রতিটি স্পটে এন্ট্রি ফি গুলো, সকল খাবার, সকল ট্রান্সপোর্টেশন খরচ, ৬ রাত থাকার খরচ (শেয়ার বেসিসে),ঢাকা- শিলিগুড়ি- ঢাকা বাসের খরচ সব কিছুই থাকবে।

#এবার আসি পোর্টের বিষয়ে:

– এই ট্রিপে জয়েন করতে চাইলে চ্যাংরাবান্ধা দিয়ে পোর্ট থাকতে হবে। যাদের এই পোর্ট দিয়ে ভিসা নেই, তারা যেতে চাইলে কথা বলে নিবেন হোস্টের সাথে

** কনফার্ম করার জন্য যোগাযোগ করে ২০ সেপ্টেম্বর তারিখের মধ্যে কনফার্মেশন মানি ১০,০০০ টাকা দ্রুত দিয়ে দিন।

*****Most important: VISA FACT*****

প্রত্যেকে নিজেদের ভিসা নিজেরাই করে নিতে পারবেন, এখন ভিসা প্রসেস অনেকটা সহজ।
তবে আপনারা চাইলে আমরা এই ব্যাপারে সব সাহায্য করবো।
ভিসা ফি ৮২৪ টাকা লাগে, এবং ফর্ম ফিলাপের খরচ ২০০ টাকা লাগবে। আমরা সব গুছিয়ে দিবো, আপনারা গিয়ে লাইনে দাড়িয়ে জমা দিয়ে আসবেন।

ভিসা করতে হলে যা যা লাগবে:
======= >
১. MRP পাসপোর্ট (ডিজিটাল)
২. পুরাতন থাকলে অবশ্যই সংযোজন করে নিয়ে যাবেন অন্যথায় জমা-ই নিবে না।
৩. ২ কপি “2/2” ইদানীংকালীন ছবি । (সাথে একটি সফট কপি/স্ক্যানড কপিও লাগবে) এক্ষেত্রে এই ছবি দিয়ে আগে ভিসা করানো থাকলে সেটি গ্রহণযোগ্য হবে না, আর ছবি হতে হবে ল্যাব প্রিন্ট।
৪. পাসপোর্টের ২ কপি ফটোকপি (শুধু MRP)।
৫. ন্যাশনাল আইডি(স্মার্ট কার্ড থাকলে সেটি) অথবা জন্ম সনদের ফটোকপি। (পাসপোর্ট যেটা দিয়ে করা)
৬. ব্যাংক স্টেটমেন্ট কমপক্ষে ৬ মাসের। মিনিমাম ব্যালেন্স ২০০০০ টাকা থাকতে হবে। আর স্টেটমেন্ট টি অনলাইন প্রিন্ট হলে চলবে না, ব্যাংক থেকে করাতে হবে,এবং এতে ব্যাংক এর সিল থাকা লাগবে।
যাদের ব্যাংক স্টেটমেন্ট দিতে সমস্যা,তারা ব্যাংক থেকে এন্ডোর্সমেন্ট করিয়ে নিতে পারেন। এতে ৩৫০-৪৫০ টাকা খরচ হবে।
৭ স্টুডেন্ট হলে আইডি কার্ডের ফটোকপি।
-চাকুরীজীবী হলে NOC (No Objection Certificate)
—ব্যবসায়ী হলে ট্রেড লাইসেন্সের ফটোকপি
৮. ইউটিলিটি বিলের (বিদ্যুৎ বিল অথবা টেলিফোন বিল) ফটোকপি। (অবশ্যই ৩ মাসের পুরাতন নয়)।

নোট: প্রত্যেকটি ডকুমেন্ট যেগুলো আমাদেরকে জমা দিবেন, সবগুলোর কপি সাথে রাখবেন এবং যাবার দিন সাথে নিয়ে যাবেন।
NOC পেপার বাংলাদেশের বর্ডারে দেখতে চায়,তাই সেটি অবশ্যই কয়েকটি কপি করে নিবেন।

** আর যাদের পাসপোর্ট নেই এখনো, তারা প্রসেস শুরু করে দিন। ২০ দিনের মধ্যেই স্বাভাবিকভাবে পেয়ে যাবেন। প্রথমে ব্যাংক এ পাসপোর্ট এর টাকা জমা দিয়ে সেখানে একটি নাম্বার পাবেন, সেটি দিয়ে বাসায় বা প্রফেশনাল কারো দ্বারা আপনি ফর্ম পূরণ করে নিবেন। তারপর দুই কপি করে সেটার সাথে ভোটার আইডি, ছবি সংযুক্ত করে নিয়ে যাবেন। আর ফর্মটিকে প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড কারো দ্বারা সত্যায়িত করে নিবেন। তারপর বাকিটা পাসপোর্ট অফিসে গেলেই পারবেন।
শর্টকাট বলে দিয়েছি, আরো ভাল ভাবে খোঁজ নিবেন প্রসেস শুরু করার আগে।

* এই ভ্রমণ এর সম্ভাব্য কিছু বর্ণনা:

– ৯ এপ্রিল দিন ০ – বৃহস্পতিবার রাতের বাসে ঢাকা থেকে বুড়িমারি যাত্রা।

– ১০ এপ্রিল দিন ১ – শুক্রবার – সকালে আমরা কাউন্টারে ফ্রেশ হয়ে বুড়ির দোকানে নাস্তা খেয়ে বর্ডারের কাজে শুরু করবো। বর্ডার পার হয়ে শিলিগুড়ি দুপুরের খাবার খেয়ে মানভঞ্জনের উদ্দেশ্যে রউনা করব। মানেভাঞ্জানে রাত থাকবো।

– ১১ এপ্রিল দিন ২- শনিবার – মনোভঞ্জন থেকে গাড়ি দিয়ে আমরা তুমলিং যাবো।এদিন থেকেই মূলত আমাদের ট্রেকিং শুরু হবে। তুমলিং থেকে গাইরিবাস-কালাপোখরি । (মোটামুটি ৫-৭ ঘনটার ট্রেক)

– ১২ এপ্রিল দিন ৩ – রবিবার- সকালের নাস্তা সেরে সান্দাকফুর উদ্দেশ্যে ট্রেকিং শুরু করব । রাতে সান্দাকফু থাকব ।

– ১৩ এপ্রিল দিন ৪ – সোমবার-সান্দাকফু থেকে ফালুট যাবো (এই ট্রেকের শেষ গন্তব্য, দূরত্ব প্রায় ২০ কি,মি এবং পুরোটাই হেটে যেতে হবে)

– ১৪ এপ্রিল দিন ৫- মঙ্গলবার- ফালুট থেকে গোরখে । গোরখে রাত্রিযাপন।

– ১৫ এপ্রিল দিনঃ৬- বুধবার- গোরখে থেকে রামাম হয়ে শ্রীখোলা । রাতে শ্রীখোলা/ মানেভাঞ্জন থাকব ।

– ১৬ এপ্রিল দিন ৭-বৃহস্পতিবার- সকালের নাস্তা করে মানেভাঞ্জন হয়ে শিলিগুড়ি । বিকেলের মধ্যে বর্ডার পার হয়ে রাতের বাসে ঢাকা ।

– ১৭ এপ্রিল সকালে ঢাকা ফিরে আসবো আমরা ।

**।*।*।** কনফার্ম করার ডেডলাইন আসন ফাঁকা থাকা পর্যন্ত । আমরা কনফার্মেশন সিরিয়াল অনুযায়ী বাসে সিট দিবো।
মৌখিক কোন কনফার্মেশন গ্রহণোযোগ্য নয়, কেবল প্রসিডিউর অনুযায়ী কনফার্ম করার পর সিট নাম্বার নির্দিষ্ট করে দেয়া হবে।

যাওয়ার স্বীদ্ধান্ত নেয়ার আগে যে বিষয়গুলো ভালো করে জেনে রাখা উচিতঃ
* এটি একটি ট্রেকিং ট্রিপ। বেশিরভাগটা পথই পায়ে হেটে, পাহাড় বেয়ে উঠে/ নেমে পথ চলতে হবে, এবং তখন আপনার ভারি ব্যাগটা আপনাকেই বহন করতে হবে।

* এই ট্রিপে তেমন কোন আলিশান খাবার বা থাকার যায়গার কোন সম্ভাবনাই নেই।

* নেটওয়ার্কের আওতার বাইরে থাকতে হবে ট্রেকিং এর প্রায় পুরো সময়টাতেই।

* বিদ্যুট সংযোগ থাকবেনা, কিছু যায়গায় জেনারেটর/সোলার এর মাধ্যমে টুক-টাক চার্জ দেয়া যেতে পারে, তবে নিজস্ব ব্যাকাপ নিজেরই থাকতে হবে।

* টেম্পারেচার ৫-১০ এর মতন থাকতে পারে, তাই শীতের কাপড় নিয়ে নিবেন।

** যা সাথে নিতে হবে:( বাধ্যতামূলক)
-ভালো গ্রিপের একটি ট্রেকিং বুট । (অবশ্যই কিছুদিন পূর্বে থেকে পরে হাঁটবেন )
– ভাল মানের ব্যাক-প্যাক । ৪০/৫০ লিটারের হলে চলবে। কাঁধে সুন্দর করে এঁটে থাকে দেখে নেবেন ।
-মাংকি ক্যাপ এবং ভাল মানের গ্লোভস ।
– ওয়াকিং স্টিক/ ট্রেকিং পুল ১ টি
-গামছা নিবেন পাতলা, কিন্তু বড় যেন রোদে মাথায় ঢেকে হাঁটা যায়
– ‘পোলারাইজড সানগ্লাস, হ্যাট, সান ক্রিম(যদি অতিরিক্ত ত্বক সচেতন হন)
-হেড ল্যাম্প/টর্চ নিতে হবে
– প্রয়োজনীয় ঔষধ
– ক্যমেরা এবং এর এক্সট্রা ব্যাটারি
– চার্জের জন্য পাওয়ার ব্যাংক
– ট্রাভেল পিলো এবং চাদর

** শর্ত সমুহঃ
১- প্রথমেই একটি ভ্রমণ পিপাসু মন থাকতে হবে।
২- ভ্রমণকালীন যে কোন সমস্যা নিজেরা আলোচনা করে সমাধান করতে হবে।
৩- ভ্রমণ সুন্দর মত পরিচালনা করার জন্য সবাই আমাদেরকে সর্বাত্মক সহায়তা করতে হবে।
৪- আমরা শালিনতার মধ্যে থেকে সরবোচ্য আনন্দ উপভোগ করব।
৫- * – সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য রাখতে হবে যেন আমাদের দ্বারা কোন প্রকার ময়লা না হয় পরিবেশের কোন অংশ। বরং চোখের সামনে ময়লা পড়লে সম্ভব হলে আমরা নিজেরা তা পরিষ্কার করবো।
৬- অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে যে কোন সময় সিদ্ধান্ত বদলাতে পারে, যেটা আমরা সকলে মিলেই ঠিক করব।
৭- স্থানীয়দের সাথে কোন রকম বিরূপ আচরণ করা যাবে না। নতুন কারো সাথে কথা বলার ক্ষেত্রে প্রয়োজনে ট্রিপ হোস্টের সহায়তা নিতে হবে।
৮- কোনভাবেই কোন প্রকার মাদক সেবন বা সাথে বহন করা যাবে না। সাথে পাওয়া গেলে তাকে বা তাদেরকে তৎক্ষণাৎ ট্রিপ থেকে বহিষ্কার করা হতে পারে গ্রুপের অন্য সবার সাথে স্বীদ্ধান্ত নিয়ে।
৯- দুর্ঘটনা বলে কয়ে আসে না তাই যে কোন প্রকার দুর্ঘটনা সকলে মিলে মোকাবেলা করতে হবে ।
** ১০- এই গ্রুপ সম্পূর্ণ ভ্রমণপিপাসুদের গ্রুপ। এখানে কোন প্রকার অশ্লীলতার কোন রকম সুযোগ নেই। কোন রকম অসৎ উদ্দেশ্যে যদি কেও আমাদের সাথে ভ্রমণে যান, সেটি বুঝে যেতে আমাদের খুব বেশি সময় লাগে না। এবং সেই মোতাবেক আমরা ব্যবস্থা নিবো।

** ভ্রমণের জন্য যে কেও আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।
ছেলে/ মেয়ে সকলেই যেতে পারবে।

**যোগাযোগ-
রাহি- ০১৭২৩৫৮৬৮৭৭
রিমন- ০১৮১৯৮৭৮৩৪০
কিরন – ০১৮৭৭৭২২৮৫৪

আমাদের আগের ইভেন্ট সমুহ দেখতে হলে এই লিংক এ যানঃ
https://www.facebook.com/groups/TourgroupBd/events/

Day 1
৯ এপ্রিল

বৃহস্পতিবার রাতের বাসে ঢাকা থেকে বুড়িমারি যাত্রা

Day 2
১০ এপ্রিল

শুক্রবার – সকালে আমরা কাউন্টারে ফ্রেশ হয়ে বুড়ির দোকানে নাস্তা খেয়ে বর্ডারের কাজে শুরু করবো। বর্ডার পার হয়ে শিলিগুড়ি দুপুরের খাবার খেয়ে মানভঞ্জনের উদ্দেশ্যে রউনা করব। মানেভাঞ্জানে রাত থাকবো

Day 3
১১ এপ্রিল

শনিবার – মনোভঞ্জন থেকে গাড়ি দিয়ে আমরা তুমলিং যাবো।এদিন থেকেই মূলত আমাদের ট্রেকিং শুরু হবে। তুমলিং থেকে গাইরিবাস-কালাপোখরি । (মোটামুটি ৫-৭ ঘনটার ট্রেক)

Day 4
১২ এপ্রিল

রবিবার- সকালের নাস্তা সেরে সান্দাকফুর উদ্দেশ্যে ট্রেকিং শুরু করব । রাতে সান্দাকফু থাকব

Day 5
১৩ এপ্রিল

সোমবার-সান্দাকফু থেকে ফালুট যাবো (এই ট্রেকের শেষ গন্তব্য, দূরত্ব প্রায় ২০ কি,মি এবং পুরোটাই হেটে যেতে হবে)

Day 6
১৪ এপ্রিল

মঙ্গলবার- ফালুট থেকে গোরখে । গোরখে রাত্রিযাপন

Day 7
১৫ এপ্রিল

বুধবার- গোরখে থেকে রামাম হয়ে শ্রীখোলা । রাতে শ্রীখোলা/ মানেভাঞ্জন থাকব

Day 8
১৬ এপ্রিল

বৃহস্পতিবার- সকালের নাস্তা করে মানেভাঞ্জন হয়ে শিলিগুড়ি । বিকেলের মধ্যে বর্ডার পার হয়ে রাতের বাসে ঢাকা

Day 9
১৭ এপ্রিল

সকালে ঢাকা ফিরে আসবো আমরা

যা থাকছে এর মধ্যে:

  • যাতায়াতের সকল খরচ
  • ঢাকা- চ্যাংরাবান্ধা - ঢাকা নন এসি বাসের খরচ ।
  • ১০ তারিখ সকালের খাবার থেকে শুরু করে অক্টোবর ৩১ তারিখ রাত পর্যন্ত প্রতিদিন তিনটি প্রধান খাবার, সেই সাথে প্রয়োজনীয় স্ন্যাক্স।
  • হোমস্টে + হোটেল এর খরচ
  • আভ্যন্তরীণ সকল যানবাহনের খরচ

যা থাকছেনা এর মধ্যে:

  • কোন ব্যক্তিগত খরচ
  • কোন ঔষধ
  • কোন রকম ব্যক্তিগত বীমা
  • ভিসা খরচ
  • ট্রাভেল ট্যাক্স
  • বর্ডার খরচ

** টাকা পাঠানোর উপায়

ব্যাংক একাউন্টঃ
Tour Group BD
#1641100026552
Dutch Bangla Bank Ltd.
(Mirpur Branch)

01919496551, 01819878340 ( দুইটি নাম্বারে যে কোন একটিতে খরচ সহ সেন্ডমানি পাঠিয়ে ট্রিপের কনফার্মেশন বুঝে নিবেন)

01819878340-3 DBBL রকেট একাউন্ট
(খরচ সহ পাঠাতে হবে)

★★টাকা পাঠিয়ে নিচের বিষয় গুলি উল্লেখ্য করে ম্যানেজারের নাম্বারে এস.এম.এস করে দিতে হবে।
**আপনার নাম
**ইভেন্টের নাম এবং তারিখ
**মোবাইল নাম্বার
**টাকার পরিমান,টি-শার্ট সাইজ
**যে নাম্বার থেকে টাকা পাঠিয়েছেন
**এবং যদি ব্যাংকে টাকা জমা দিয়ে থাকেন সেই ক্ষেত্রে জমা দেয়ার রিসিট টিজিবি পেইজে ইনবক্স অথবা ইভেন্টে শেয়ার দিতে পারেন।

You can send your enquiry via the form below.

সান্দাকফু-ফালুট ট্রেকিং এ টিজিবি বাহিনী (৯ এপ্রিল)
Price From
৳ 15,900 Per Person
Add Travelers
Person
৳ 15,900 Per Person
Need Help With Booking? Send Us A Message

Trip Facts

  • Ac/ Non Ac Bus
  • 15
  • 3636 M
  • Moderate
  • Home Stay